ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব

ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব – ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখবো — প্রিয় পাঠক আপনি কি ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে চাচ্ছেন? জানতে চাচ্ছেন, ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব? কিংবা সারাদিন আপনি চিন্তা ভাবনা করেন ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব এই ব্যাপারে?‌ তাহলে আমাদের আজকের এই আর্টিকেলটি আপনার জন্য অনেকবেশি জরুরি।

বর্তমান সময়ে ডিজিটাল মার্কেটিং এর দিকে মানুষ বেশি ঝুঁকছে চাকুরি ছেড়ে দিয়ে। অর্থাৎ অনেকেই আছেন যারা তাদের স্বপ্নের চাকুরি ছেড়ে ঝুঁকছে এই ডিজিটাল মার্কেটিং পেশার দিকে। কারণ ডিজিটাল মার্কেটিং এর মধ্যে যে স্বাধীনতা পাওয়া যায় চাকুরি মধ্যে সে স্বাধীনতা পাওয়া যায়না। পাশাপাশি বর্তমান সময়ে ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস সহ লোকাল মার্কেটে ডিজিটাল মার্কেটিং এর প্রচুর চাহিদা রয়েছে।

 

কারণ প্রতিটি ব্যবসার সফলতার পিছনে থাকে মার্কেটিং। যেকোনো ব্যবসাকে সঠিক ভাবে সুপ্রতিষ্ঠিত করতে হলে মার্কেটিং এর বিকল্প নেই। মার্কেটিং ছাড়া ব্যবসায় সফলতা লাভ করা যায়না। মার্কেটিং হচ্ছে এমন একটি হাতিয়ার যার মাধ্যমে আপনার ব্যবসার প্রচার-প্রসার করা হয় খুবই সহজে। বহুকাল পূর্বে ব্যবসার ধরণ ছিলো এক রকম, ঠিক তেমনি ভাবে ব্যবসার প্রচারের মাধ্যম ছিলো ভিন্ন ধরনের।

সেই সময়ে ব্যবসার প্রচার-প্রসারের ক্ষেত্রে বিলবোর্ড, বিজ্ঞাপন, টিভি বিজ্ঞাপনের সাহায্য নিতে হতো। যার কারণে ব্যবসার প্রচার খানিকটা ধীর গতিতে সম্পন্ন হতো। মানুষের কাছে খবর পৌঁছাতেও ঠিক তেমনি করে অনেক সময় লাগতো। মার্কেটিং এ সফল হওয়ার উপায় নিয়ে ইতোমধ্যে আমারা লিখেছি। আজকে ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব? তা নিয়ে আলোচনা হবে।

আর হ্যাঁ যখন মার্কেটিং এর প্রশ্ন আসে তখন অবশ্যই ডিজিটাল মার্কেটিং সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য পায়। ডিজিটাল মার্কেটিং এর মাধ্যমে ব্যবসায় প্রচুর প্রচার প্রসার ঘটানো যায়। যার কারণে ব্যবসায় সফলতা আসে। আজ আমি আপনার মনে প্রশ্ন ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব তার সঠিক উত্তর দিবো। ফলে আপনি খুবি সহজেই ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে পারবেন এবং আপনার ক্যারিয়ার গড়তে পারবেন কোনো ধরনের ঝামেলা ছাড়াই।

আপনি কি জানেন যে ভবিষ্যতে ডিজিটাল মার্কেটিং অনেক পপুলার ক্যারিয়ারের স্কোপ রয়েছে। এখানে টাকা ইনকাম করার অনেক সুযোগ আছে। কিন্তু এখন কথা হচ্ছে ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব ? এবং ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার উপায় এর জন্য কি কি করতে হবে আর ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে কত টাকা খরচ করতে হবে সাথে ফ্রিতে কিভাবে ডিজিটাল মার্কেটিং শিখব ?

প্রিয় পাঠক ডিজিটাল মার্কেটিংকে লোকে পূর্বে অনেক হালকাভাবে গ্রহণ করতো, কিন্তু বর্তমান সময়ে যখন দেশে কিংবা গোটা বিশ্বে লকডাউন হয়েছে তখন ডিজিটাল মার্কেটিং এর আসল ভ্যালু বুঝতে পারছে। তাই ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব জানার আগে চলুন সর্বপ্রথম জেনে নিই ডিজিটাল মার্কেটিং কি?

 

 

ডিজিটাল মার্কেটিং কি?

টেকনোলজির উৎকর্ষতার সাথে সাথে মানুষের চিন্তাধারার ব্যাপক পরিবর্তন ঘটেছে। সেই সাথে মানুষ প্রযুক্তিকে ব্যবহার করে বা টেকনোলজিকে কাজে লাগিয়ে মানুষের দৈনন্দিন জীবনের ব্যাপক উন্নতি সাধন হচ্ছে। ইন্টারনেট প্লাটফর্ম অর্থাৎ প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে ঘরে বসে হোক কিংবা যেকোনো স্থানে বসে হাজার হাজার অথবা লাখ লাখ মানুষের কাছে বা অধিক সংখ্যক গ্রাহকের অল্প সময়ের মধ্যে পণ্যের প্রচার করাকেই বলা হয় ডিজিটাল মার্কেটিং।

ডিজিটাল মার্কেটিংকে প্রযুক্তির একটি অন্যতম ক্ষেত্র হিসেবে বিবেচনা করা হয়ে থাকে। বর্তমান সময়ে এই ডিজিটাল মার্কেটিং এর মাধ্যমে বড় বড় কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠানগুলো সফলতার উচ্চ শিখরে পৌঁছে গেছে। বর্তমান সময়ে ছোট থেকে বড় সকল ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে ডিজিটাল মার্কেটিং এর জয় জয়কার। ডিজিটাল মার্কেটিং বা প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে ছোট থেকে বড় সকল ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান তাদের নিজেদের পরিচিতি তুলে ধরতে পেরেছে, আরো বেশি বড় পরিসরে।

যেমন; কেউ যদি তার প্রোডাক্টকে ডিজিটাল মার্কেটিং করতে চায় এসময় তাকে ডিজিটাল মাধ্যমে আলাদা আলাদা সোশ্যাল মিডিয়া বা এডভার্টাইজিং কোম্পানি ব্যবহার করতে হবে। আর ইন্টারনেটের সাহায্যে যে সকল পদ্ধতি রয়েছে সকল পদ্ধতি সায়াহ্য নিতে হবে। এ সকল করেই তার প্রোডাক্টের রিচ বেশি বেশি টার্গেটেড কাস্টমারের কাছে পৌঁছাতে পারবে।

তাই, আজকের যেকোনো ধরনের ব্যবসা প্রচারের অন্যতম প্রধান এবং গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্র হয়ে উঠেছে ডিজিটাল মার্কেটিং। তাহলে আমরা জেনে নিলাম ডিজিটাল মার্কেটিং কি সেই সম্পর্কে। এখন হয়তো আপনাদের মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে, ডিজিটাল মার্কেটিং ক্ষেত্রসমূহ সম্পর্কে।

ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব

নিম্নে এমন কিছু বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। যার ফলে আপনি খুবি সহজেই ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে অনেক বেশি আইডিয়া পেয়ে যাবেন। পাশাপাশি ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার অনেক মাধ্যমে সম্পর্কে জানতে পারবেন। আর হ্যাঁ এখানে আলোচনা করা প্রত্যেকটি মাধ্যমই প্রসিদ্ধ ও গ্রহণযোগ্য।

 

ডিজিটাল মার্কেটিং এর মধ্যে কোন কোন বিষয় রয়েছে?

ডিজিটাল মার্কেটিং বর্তমানে প্রায় সবখানে ছেঁয়ে গেছে। অর্থাৎ ডিজিটাল মার্কেটিং কেবল একটি বিষয় না বরং এটির মাঝে অনেক গুলো বিষয় অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। মোটকথা অনেকগুলো বিষয় নিয়েই মূলত ডিজিটাল মার্কেটিং গঠিত। আর যদি আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং এর সকল ক্ষেত্রগুলো সম্পর্কে জেনে রাখেন তাহলে পরবর্তীতে আপনি আপনার কাজের ক্ষেত্রে তা সঠিকভাবে ব্যবহার করতে পারবেন।

চলুন জেনে নেই ডিজিটাল মার্কেটিং কি কি মাধ্যমে করা হয়ে থাকেঃ ১। সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং ২। কনটেন্ট মার্কেটিং ৩। সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (এসইও) ৪। ভিডিও মার্কেটিং ৫। অনলাইন এডভার্টাইজমেন্ট ৬। ইমেইল মার্কেটিং ৭। এফিলিয়েট মার্কেটিং ৮। এডভার্টাইজিং বা অনলাইন বিজ্ঞাপন ৯। ব্লগিং ১০। এসএমএস মার্কেটিং ১১। ভয়েস কল মার্কেটিং ইত্যাদি। এবার চলুন প্রতিটি বিষয়ের সঠিক বিবরণ জেনে নিই।

 

১। সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং

আমার জানা মতে ডিজিটাল মার্কেটিং করার জন্য সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর চেয়ে সহজ ও সস্তা আর কোনো মাধ্যম নেই। আপনার যদি সামান্য সোশ্যাল মিডিয়া সম্পর্কে ধারণা থাকে তাহলে হয়তো আপনি বিনা খরচে সোশ্যাল মেডিয়া মার্কেটিং করে নিতে পারবেন। এজন্য আপনার শুধু লাগবে ইউনিক আইডিয়া। এই ডিজিটাল যুগে মানুষ সবচেয়ে বেশি পরিমাণে সোশ্যাল মিডিয়ার সঙ্গে যুক্ত থাকে। যার কারণে বেশিরভাগ কোম্পানি এই সুযোগটা কাজে লাগে তারা সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে তাদের পণ্য মার্কেটিং করে।

যেকোনো ধরণের পণ্যের প্রচার বা প্রসারের জন্য বেছে নিতে পারেন এই সোশ্যাল মাধ্যম। সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং করার মাধ্যমে মানুষ আপনার পণ্য সম্পর্কে যেমন জানতে পারবে, ঠিক তেমনি করে কেনার ব্যাপারে আগ্রহ পোষণ করবে। সোশ্যাল মিডিয়ায় মার্কেটিং মূলত দুইভাবে করা যায়। একটি হচ্ছে বিনামূল্য মার্কেটিং এবং আরেকটি হচ্ছে টাকা খরচ করে মার্কেটিং। যদি টাকা খরচ করে মার্কেটিং করা হয় তাহলে বেশি সফল হওয়া যায়। তাই ঘরে বসে অলস সময় না কাটিয়ে শুরু করে দিন সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং।

 

২। কনটেন্ট মার্কেটিং

প্রতিটি ব্যবসার ক্ষেত্রে কনটেন্ট অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে। অর্থাৎ কন্টেন্টকে যেকোনো ব্যবসার প্রাণ বলা হয়ে থাকে। কারণ কনটেন্ট মার্কেটিং এর মাধ্যমে আপনি আপনার প্রোডাক্ট সম্পর্কে মানুষকে সহজেই জানাতে পারবেন। যার ফলে মানুষ ঐ প্রোডাক্টের সমস্ত বিষয় অনেক সহজেই জানতে পারবে এবং পণ্যের সুবিধা-অসুবিধা সম্পর্কে জানার সুযোগ হবে। সোশ্যাল মিডিয়াকে ব্যবহার করে নিজের পণ্যসমূহ সম্পর্কে লেখালেখি করে মানুষেকে জানানোর মাধ্যমে হচ্ছে কন্টেন্ট মার্কেটিং।

৩। সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন

ডিজিটাল মার্কেটিং এর একটি সেক্টর হচ্ছে সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশন বা সংক্ষেপে এসইও। যেকোনো ওয়েবসাইটকে বিভিন্ন সার্চ ইঞ্জিন যেমনঃ গুগল, বিং, ইয়াহু এর সার্চ ইঞ্জিনে প্রথমে নিয়ে আসাকে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন বা এসইও বলে। অর্থাৎ এসইও হলো এমন একটি প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে সার্চ ইঞ্জিনের নীচে একটি ফলাফল শীর্ষে আনা হয় র‌্যাঙ্কিং পরিবর্তন করে।

যেকোনো ধরনের ওয়েবসাইটকে এসইও বেশি বেশি ভিজিটর পেতে সাহায্য করে। কোনো সাইটে যতবেশি পরিমাণে এসইও করা হবে, সেই সাইটের ভিজিটর সংখ্যা ততবেশি বৃদ্ধি পাবে। অতএব প্রত্যেকটি ডিজিটাল ব্যবসা প্রচার-প্রসারের জন্য এসইও অনেক গুরুত্বপূর্ণ। যদি আপনি কেবল SEO ভালোভাবে শিখতে পারেন তাহলে আপনাকে আর পিছনের দিকে ফিরে তাকাতে হবেনা।

 

৪। ভিডিও মার্কেটিং

ভিডিও এর মাধ্যমে আপনি আপনার পণ্যের মার্কেটিং করতে পারবেন সহজেই। যদি আপনার ভিডিও তৈরি করা এবং ভিডিও এডিট করার দক্ষতা থাকে তবে আপনি খুবই সহজে ভিডিও এডিটিং কাজ করার মাধ্যমে প্রোডাক্টের মার্কেটিং করতে পারবেন। এই কাজ করার জন্য চমৎকার ও আকর্ষণীয় ভিডিও তৈরি করতে হবে এবং মানুষ জেনো আপনার ভিডিওটি দেখে সেখানে আলোচনা করা প্রোডাক্ট পছন্দ করে আর আপনার প্রোডাক্ট ক্রয় করে।

বর্তমান সময়ে প্রতিদিন প্রচুর পরিমাণে মানুষ গুগল, ফেসবুক এবং ইউটিউবে ভিডিও দেখে থাকে। তাই আপনাকে ঐ ধরণের মানুষকে সিলেক্ট করতে হবে যারা প্রোডাক্ট রিলেটেড ভিডিও সার্চ করে থাকে। আপনার প্রোডাক্ট যে ধরণের সেই ধরণের প্রোডাক্টের এফিলিয়েটের জন্য ভিডিও তৈরি করবেন। এটা মার্কেটিং করার একটি চমৎকার কৌশল।

৫। অনলাইন এডভারটাইজমেন্ট

বর্তমানেসময়ে প্রোডাক্ট এর প্রচার এবং প্রসারের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য দেয়া হচ্ছে অনলাইন এডভারটাইজমেন্টকে। অনলাইন এডভারটাইজমেন্ট এর মাধ্যমে আপনার প্রোডাক্ট সম্পর্কে মানুষ ঘরে বসে থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কল্যাণে দেখার ও প্রোডাক্ট সম্পর্কে জানার সুযোগ পাচ্ছে। অনেক প্ৰতিষ্ঠান আছে যারা গ্রাহকদের সুবিধার্থে অনলাইন এডভারটাইজমেন্ট তৈরী করে থাকে, তাদের সঙ্গে তাই যোগাযোগ করলে ব্যাপারটি ফলপ্রসূ হবে।

আর অনলাইন বিজ্ঞাপন ও সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং মূলত একই জিনিস। আপনি আপনার কীওয়ার্ডের উপর ভিত্তি করে গুগল অ্যাডওয়ার্ডসের মাধ্যমে এই পরিষেবাটি নিতে পারেন। টিভি কিংবা আপনাকে যেকোনো প্রিন্ট মিডিয়াতে কোনো বিজ্ঞাপন প্রচার করার জন্য প্রচুর পরিমাণে অর্থ দিতে হবে, তবে অনলাইন বিজ্ঞাপনে এই ব্যয় অনেক কম। অল্প খরচে আপনি অনেক গ্রাহকের কাছে প্রোডাক্ট পৌঁছে দিতে পারেন।

 

৬। ইমেইল মার্কেটিং

ইমেইল মার্কেটিং এটি একটি ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের জনপ্রিয় মাধ্যম হয়ে উঠেছে এবং ধীরে ধীরে এর জনপ্রিয়তা ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। কেননা বর্তমানে প্রফেশনাল কাজে বা বিভিন্ন কাজের ক্ষেত্রে সবাই ব্যবহার করে ই-মেইল। মোবাইলের মেসেজের মতো গ্রাহকদেরকে নির্দিষ্ট করে ইমেইলের মাধ্যমে প্রোডাক্টের মার্কেটিং করা যায়। যার কারণে প্রোডাক্টের প্রচার প্রসার ঘটে। ইমেইলের মাধ্যমে মার্কেটিং করার একটি ভালো দিক হচ্ছে আপনি ইমেইলের মাধ্যমে আপনার পণ্যের বিজ্ঞাপন ফ্রিতে দিতে পারবেন।

আপনার আপনার টার্গেট কাস্টমারদের সেট করে নিয়ে, সেই কাস্টমারদের ইমেইল আইডি কালেক্ট করে নিতে পারেন। তারপর সুন্দর ভাবে ছবি সংযুক্ত করে, পণ্যের সাথে বিবরণ দিয়ে, ইমেইল পাঠিয়ে দিতে পারেন তাদের কাছে। এভাবে আপনার প্রোডাক্ট ছড়িয়ে যাবে দেশের একপ্রান্ত থেকে অন্যপ্রান্তে। আপনার কাছে যদি ইমেইল এড্রেসের লিস্ট থেকে থাকে তাহলে আপনি নিজেই পাঠাতে পারেন আর যদি না থাকে তাহলে এরকম সার্ভিস প্রোভাইড করে থাকে এমন কাউকে নিযুক্ত করে দিতে পারেন ইমেইল মার্কেটিং এর জন্য।

৭। এফিলিয়েট মার্কেটিং

সাধারণত দুটি প্রতিষ্ঠান কিংবা ব্যক্তির পরষ্পর নিজেদের প্রোডাক্ট মার্কেটিং করে পণ্য প্রচারের মাধ্যমকে এফিলিয়েট মার্কেটিং বলা হয়। বর্তমান সময়ে সকলের নিকট এফিলিয়েট মার্কেটিং বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এফিলিয়েট মার্কেটিং করার ক্ষেত্রে দুটি কোম্পানির পারষ্পারিক স্বার্থ জড়িয়ে আছে।

মনে করুন, কোনো একটি কোম্পানির প্রচুর পরিমাণে ফলোয়ার আছে কিন্তু, তাদের পর্যাপ্ত প্রোডাক্ট নেই। আর আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রোডাক্ট আছে কিন্তু ফলোয়ার নাই। এই ২ কোম্পানি যদি পারস্পরিক সমঝোতা করে নিজেদের মাঝে এফিলিয়েশন করে নিতে পারেন তবে, দুইপক্ষই লাভবান হওয়ার সুযোগ পাবে। বর্তমানে তাই এফিলিয়েট মার্কেটিং অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

আপনি কোনো পণ্যের এফিলিয়েশন নিয়েও তার মার্কেটিং করতে পারেন। বিভিন্ন বড় বড় কোম্পানি তাদের পণ্যের এফিলিয়েশন দিয়ে থাকে, যেমন অ্যামাজন, আলিবাবা সহ ছোটো খাটো আরো আনেক ই-কমার্স সাইট। এদের এফিলিয়েশন নিয়ে আপনি আপনার ওয়েবসাইটে কিংবা ইমেইল মার্কেটিং করে পণ্য বিক্রয় করে আপনি কমিশন পেতে পারেন। এভাবে সারাবিশ্বের লাখ লাখ মানুষ প্রতিমাসে হাজার হাজার ডলার ইনকাম করছেন।

৮। এসএমএস মার্কেটিং

বাংলাদেশে মার্কেটিং করার জন্যে একটি বহুল জনপ্রিয় মাধ্যম হয়ে উঠেছে বাল্ক SMS এর মাধ্যমে মার্কেটিং। আপনি আপনার প্রোডাক্টের বিজ্ঞাপন লিখেে বাল্ক SMS এর মাধ্যমে খুব সহজে আপনার প্রোডাক্ট সম্পর্কে মানষের কাছে পৌঁছে দিতে পারবেন SMS মার্কেটিং করার মাধ্যমে। মনে রাখবেন, বাল্ক SMS এর খরচ সাধারণ খরচের মতো নয়। SMS মার্কেটিংয়ের খরচ অনেক কম পরিমাণে হয়ে থাকে।

৯। ব্লগিং মার্কেটিং

গুগল সকলের জন্য একটা জনপ্রিয় মাধ্যম বিনামূল্যে দিয়ে রাখছে শুধু যারা ভালোমানের আর্টিকেল লিখতে পারেন তাদের জন্য। তবে হ্যাঁ যদি আপনি ভালো কোয়ালিটির আর্টিকেল লিখতে পারেন বা লিখে থাকেন তাহলে এই মার্কেটিং মাধ্যম আপনার জন্য। আপনি আপনার নিজের ব্লগ সাইটের অথবা অন্যের ব্লগ সাইটে গেস্ট রাইটার হিসেবে কোনো প্রোডাক্টের রিভিউ লিখে প্রোডাক্টের প্রচার প্রচারণা করতে পারেন। এই কাজ করে প্রতিমাসে অনেক টাকা আয় করা যায়। তবে সাধারণ আর্টিকেল লেখা আর ওয়েবসাইটে আর্টিকেল লেখার মাঝে কিন্ত পার্থক্য রয়েছে।

উপরোক্ত আলোচনা করা ৯টি বিষয় হচ্ছে ডিজিটাল মার্কেটিং এর জনপ্রিয় সেক্টর। এগুলোর মাধ্যমে আপনারা পণ্যের সঠিক মার্কেটিং করতে পারবেন সহজেই। আপনার কাছে ডিজিটাল মার্কেটিং করার জন্য কোন সেক্টরটি ভালো লেগেছে তা আমাদেরকে অবশ্যই জানাবেন। এবার চলুন জেনে নেই ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব তা সম্পর্কে নিচে বিস্তারিত জেনে নেইঃ

 

ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব

বর্তমান সময়ে ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার জন্য দেশি এবং বিদেশে অনেক ধরনের অনলাইন কিংবা অফলাইনে প্রতিষ্ঠান সমূহ বিদ্যমান আছে। আপনি শেখার ক্ষেত্রে সবকিছু জেনে বুঝে মাঠে নামাটাই হচ্ছে বুদ্ধিমানের কাজ। ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব ? এই বিষয় নিয়ে নিচে আলোচনা করছি।

অনেকেরই ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার ও জানার প্রতি আগ্রহ আছে। কিন্তু, কোথায় ডিজিটাল মার্কেটিং শিখলে আপনার জন্য ভালো হবে সেটা অনেকেই জানিনা। আজ আমরা এখানে ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার জন্য অনলাইনে কিছু নির্ভরযোগ্য প্লাটফর্ম এর তথ্যাদি এবং সেই সাথে অফলাইন প্ল্যাটফর্মের কিছু বৈশিষ্ট্য আলোচনা করার চেষ্টা করেছি আপনাদের সামনে। ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব পড়ে আশা করি আপনাদের উপকার হবে।

ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার দুইটি মাধ্যম আছে যথাঃ ১। ফ্রিতে ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে পারেন। অর্থাৎ ইউটিউবে ডিজিটাল মার্কেটিং শিখার জন্য অনেক ভিডিও পেয়ে যাবেন। সে সমস্ত ভিডিওগুলো দেখে আপনি ঘরে বসে খুব সহজেই শিখতে পারেন ডিজিটাল মার্কেটিং ২। টাকা খরচ করে বিভিন্ন কোর্স করে ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে পারেন। টাকা খরচ করে কিভাবে ডিজিটাল মার্কেটিং শিখা যায় এ বিষয় নিয়েও বিস্তারিত ভাবে আলোচনা করবো। যাতে করে আপনি খুব সহজেই ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে পারেন।

ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব?

ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব

অনলাইনে ভিডিও দেখে বা লাইভ ক্লাস করে – ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স বাংলা

১। ইউটিউব থেকে ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স

ডিজিটাল মার্কেটিং টিউটোরিয়াল বা ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স এর ভান্ডার বলা যায় ইউটিউবকে। যেকোনো বিষয়ে শেখা এবং জানার জন্য অন্যতম একটি ই-লার্নিং প্ল্যাটফর্ম হচ্ছে ইউটিউব। আপনি ইউটিউবে সার্চ দিয়ে ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে সকল বিষয়বস্তু A to Z জানতে পারবেন। ইউটিউবের মাধ্যমে আপনি আপনার পছন্দের বিভিন্ন ধরনের কোর্স সমূহ ভিডিও টিউটোরিয়াল আকারে ঘরে বসে শিখতে ও জানতে পারবেন। বর্তমানে সারাবিশ্ব ব্যাপী ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের জয় জয়কার। তাই, ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে চাইলে নির্দিধায় বেছে নিতে পারেন এই ইউটিউব প্ল্যাটফর্মটিকে।

ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স বাংলা

বর্তমান সময়ে অনেকগুলো কোম্পানি কিংবা ওয়েবসাইট আছে যাদের কাছে থেকে কোর্স ক্রয় করে অনেক সহজেই ডিজিটাল মার্কেটিং শিখে নিতে পারবেন। নিচে কয়েকটি ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার ওয়েবসাইটে নাম দেওয়া হলো।

১। বহুব্রীহি

বাংলাদেশের অন্যতম সেরা একটি জনপ্রিয় ই-লার্নিং প্লাটফর্ম হচ্ছে বহুব্রীহি। এই ওয়েবসাইটটি আমার কাছে অনেক চমৎকার ও দারুন লাগে। ঘরে বসে থেকে নিজের পছন্দমতো সময়ে নিজের স্কিল ডেভেলপমেন্ট করতে চাইলে সম্পূর্ণ বাংলা ভাষায় রচিত ভিডিও কোর্সগুলো দেখে নিতে পারেন। সুতরাং যদি আপনি ডিজিটাল মার্কেটার হিসেবে ক্যারিয়ার গড়তে চান তাহলে এই কোর্সটি করতে পারেন।

এই কোর্সটি আপনি সম্পূর্ণ বাংলা ভাষায় করতে পারবেন। তাদের কোর্সের নাম হলোঃ কমপ্লিট ডিজিটাল মার্কেটিং শিখুন। এই কোর্সের মাধ্যমে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সমস্ত বিষয় শেখানো হয়েছে এবং পাশাপাশি এখানে বিভিন্ন টুলস সম্পর্কে জানতে পারবেন। আপনি যদি ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে চান তাহলে শেখার ক্ষেত্রে বেছে নিতে পারেন এই প্লাটফর্মটিকে।

 

২। Creative IT Institute

বাংলাদেশ আরেকটি জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্সিং প্রশিক্ষণ কেন্দ্র হলো ক্রিয়েটভ আইটি ইন্সিটিউট। আন্তর্জাতিক মানের প্রকল্প গুলোর জন্যে তারা তাদের ফ্রিল্যান্সারদের সফল ট্রেনিং দিয়ে থাকে। স্বল্পমূল্যে তাদের এখান থেকে ফ্রিল্যান্সিংয়ের অনেক ভালো ভালো কোর্স করতে। কোর্স গুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে- ডিজিটাল মার্কেটিং। যদি আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং শিখে দক্ষ হয়ে টাকা ইনকাম করতে চান তাহলে এই ক্রিয়েটভ আইটি ইন্সিটিউট প্লাটফর্মটিকে শেখার ক্ষেত্রে বেছে নিতে পারেন। আশা করা যায় এখান থেকে আপনারা অনেক ভালো কিছু শিখতে পারবেন।

৩। লার্নিং বাংলাদেশ – Learning Bangladesh

বাংলা ভাষা ভাষীদের ক্ষেত্রে সম্পূর্ণ জনপ্রিয় একটি ই-লার্নিং প্ল্যাটফর্ম হচ্ছে লার্নিং বাংলাদেশ। এই ওয়েবসাইটটি অনেক চমৎকার এবং জনপ্রিয়। এখানে আপনারা বিভিন্ন ধরনের কোর্স পাবেন বাংলা ভাষাতে। অর্থাৎ বাংলা ভাষায় পরিচালিত বিভিন্ন ধরণের কোর্স আছে এই বাংলাদেশি ই-লার্নিং প্ল্যাটফর্মে।

অত;এব যদি আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে চান তাহলে এই লার্নিং ওয়েবসাইট থেকে শিখে নিতে পারেন। তাদের ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে একটি কোর্স আছে কোর্সের নাম হলোঃ ডিজিটাল মার্কেটিং এর হাতেখড়ি। এই কোর্সটি আপনারা মাত্র ৩৬৯ টাকা দিয়ে করতে পারবেন। তবে হ্যাঁ এই টাকা কমবেশি হতে পারে। তাদের ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্সটি অনেক চমৎকার ও লাভজনক।

৪। অর্ডিনারি আইটি

২০১৮ সালের শুরুর দিকে প্রতিষ্ঠা করা হয় অর্ডিনারি আইটি। মূলত প্রযুক্তির জ্ঞান মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়ার উদ্দেশ্যে তৈরি হয়েছিল এই অর্ডিনারি ওয়েবসাইটটি। শুরুটা ওয়েবসাইট দিয়ে হলেও বর্তমানে অর্ডিনারি আইটি এই দেশের মাটিতে নিজেদেরকে একটি ব্র্যান্ড হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করছে। আইটি রিলেটেড বিভিন্ন বেষ্ট কোয়ালিটির ভিডিও টিউটোরিয়াল সমূহ তাদের আছে, যা দেখে ঘরে বসেই একজন নতুন স্টুডেন্ট কাজ শিখতে পারবে।

ডিজিটাল মার্কেটিং, এসইও, গ্রাফিক্স ডিজাইন ইত্যাদি রিলেটেড কোর্স তারা করিয়ে থাকেন ফ্রিল্যান্সিং শেখার জন্য। ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্সটি আপনারা অফলাইন এবং অনলাইন ২টি পদ্ধতিতে করতে পারবেন। এছাড়াও এই আপনারা তাদের ওয়েবসাইটে আর্টিকেল রাইটার হিসেবে কাজ করে প্রতিমাসে ১০০০০ হাজার টাকা থেকে ১৫০০০ হাজার টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারবেন।

যারা তাদের ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্সে একবার জয়েন করবেন তারা ভবিষ্যতে অর্ডিনারি আইটি’র ২০+ সকল অনলাইন কোর্স একদম ফ্রিতে করতে পারবেন। সেই সাথে আপনার সংশ্লিষ্ট যেকোনো সমস্যার সারা জীবনের ফ্রী সাপোর্ট তো পাবেনই। অর্ডিনারি আইটিতে ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স করার জন্য যোগাযোগ করুন এখানে ক্লিক করে

 

ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স ইংরেজি

১। ইউডেমি – Udemy

বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয় একটি ই-লার্নিং প্লাটফর্ম হচ্ছে ইউডেমি। এই ওয়েবসাইটটি অনেক জনপ্রিয় ও চমৎকার। এই ওয়েবসাইটটি শুধুমাত্র বাংলাদেশে নয় পুরো পৃথিবী জুড়ে বিখ্যাত। আপনি ঘরে বসে থেকে নিজের পছন্দ অনুযায়ী সময়ে ইউডেমির লক্ষাধিক কোর্সে অংশগ্রহণ করতে পারেন। ইউডেমিতে আপনি ফ্রি এবং পেইড ২ ধরনের মাধ্যমে আপনি কোর্সে অংশগ্রহণ করতে পারবেন।

ইউডেমিতে বিভিন্ন ধরনের অনেক সংখ্যক কোর্স আছে। তাই, আপনি এখান থেকে পছন্দের কোর্স বেছে নিতে পারেন। ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার ক্ষেত্রে আপনার জন্য একটি অপরিহার্য প্ল্যাটফর্ম হতে পারে ইউডেমি। যদি আপনি বিশ্বমানের ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে চান সেক্ষেত্রে ইউডেমি থেকে শিখতে পারেন। আপনি যদি ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে চান তাহলে এই সেরা ওয়েবসাইট থেকে নির্দ্বিধায় কোনো ধরনের টেনশন ছাড়াই শিখতে পারেন। ইউডেমি – Udemy ওয়েবসাইট ভিজিট করুন এখানে ক্লিক করে

 

২। কোর্সেরা – Coursera

বিশ্বব্যাপী আরেকটি অন্যতম জনপ্রিয় ই-লার্নিং প্লাটফর্ম হচ্ছে কোর্সেরা। সারাবিশ্বের বহু শিক্ষার্থীদের জন্যে লক্ষাধিক কোর্স নিয়ে হাজির হয় এই কোর্সেরা – Coursera প্রতিষ্ঠানটি। এই ওয়েবসাইটে বিনামূল্যে এবং টাকা খরচ করে প্রায় এই দুই ধরনের কোর্স বিদ্যমান আছে। আপনি আপনার পছন্দের কোর্সটি করতে বেছে নিতে পারেন সেরা এই কোর্সেরা – Coursera ওয়েবসাইটটিকে।

কোর্সেরা ওয়েবসাইটের অনেক সংখ্যক কোর্সের মধ্যে ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্সটি অন্যতম। যদি আপনি বিশ্বমানের ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে চান তবে সেক্ষেত্রে অন্যতম একটি ফলপ্রুস সম্ভাবনা বয়ে নিয়ে আসতে পারে এই ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্সটি। Coursera ওয়েবসাইট থেকে ডিজিটাল মার্কেটিং করার জন্য লিংক থেকে ভিজিট করুন

৩। রিলেবল সফট – Reliable soft

ডিজিটাল মার্কেটিংয়ে নিজেকে সম্পূর্ণ ইংরেজি ভাষায় দক্ষ করতে চাইলে, আজই করতে পারেন এই কোর্সটি। এখানে ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্সের উপর তারা ভালো ফোকাশ দিয়ে থাকে একজন শিক্ষার্থীকে এক্সপার্ট করে তোলার জন্য। এই ওয়েবসাইটে আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং এবং এসইও এর উপরে দুইটি কোর্স করতে পারবেন। ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব জানার জন্য ভিজিট করুন Reliable soft ওয়েবসাইটে এখানে ক্লিক করে

আশা করি আপনার প্রশ্ন তথাঃ ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব এর উত্তর পেয়ে গেছেন। অত;এব যদি আপনি ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের মধ্যে সফল হতে চান তাহলে ভালো ভাবে শিখতে হবে। যেকোনো একটি বিষয়ের উপরে স্কিল তৈরী করতে হবে। অন্যথায় আপনি সফল হতে পারবেন না। এছাড়াও অনেকেই আছেন যারা প্রশ্ন করেন সরাসরি ট্রেনিং সেন্টার থেকে ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব ? তাহলে চলুন জেনে নিই সরাসরি ট্রেনিং সেন্টার থেকে কিভাবে ডিজিটাল মার্কেটিং শিখবেন।

 

ডিজিটাল মার্কেটিং ট্রেনিং সেন্টার — ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব

আজকাল সময়ের সাথে সাথে নতুন নতুন অল্প সময়ের মাথায় অনেক প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। অর্থাৎ বর্তমানে আমাদের আশেপাশে প্রচুর পরিমাণে ট্রেনিং সেন্টার হচ্ছে। আপনি চাইলে অফলাইনে ও ডিজিটাল মার্কেটিং সহ যেকোনো ধরনের কোর্স করতে পারবেন। কোনোটা ভালো আবার কোনোটা খারাপ।

তবে হ্যাঁ আমি আজ কোনো ধরনের প্রতিষ্ঠানের নাম এখানে বলবো না। তাই ট্রেনিং সেন্টারে ভর্তি হওয়ার আগে কয়েকটি বিষয় আপনাদের সামনে তুলে ধরব যা অবশ্যই আপনাকে যাচাই-বাছাই করে নিতে হবে। যার মাধ্যমে আপনি খুবই সহজের নিজের জন্য প্রয়োজনীয় অফলাইন প্রতিষ্ঠানটি খুজেঁ নিতে পারেন। তাই, দেরি না করে শুরু করি।

১। ট্রেনিং সেন্টারে কতজন ছাত্র ট্রেনিং নিয়েছেন এবং তারা কতটুকু সাকসেস বর্তমানে ২। ইন্সট্রাক্টর এর পরিচিতি ৩। কত বছর যাবৎ প্রতিষ্ঠানটি টিকে আছেন ৪। কোন কোন বিষয় শেখানো হয় এই ট্রেনিং সেন্টার ৫। প্রতিষ্ঠানের রেকর্ড ৬। কতজন ট্রেইনার এই সেন্টারে ট্রেনিং দেয় এবং তাদের পরিচয় কি ৭। শিক্ষার্থীদের রিভিউ ৮। প্রার্থীরা কোথায় অবস্থান করছে এবং কেমন কাজ করছে ৯। উক্ত প্রতিষ্ঠান থেকে কোর্স করলে তা ক্যারিয়ারে কেমন প্রভাব বিস্তার করবে।

উক্ত বৈশিষ্ট্যের যাচাই-বাছাই করে যদি ভাবেন যে ভালো তবে আপনি অবশ্যই এখানে ভর্তি হয়ে ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে পারেন। আর আপনি বেছে নিতে পারেন কোর্স করার জন্য আপনার পছন্দের প্রতিষ্ঠানকে। ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব ? এই প্রশ্নের উত্তর আশাকরি পেয়ে গেছেন।

উপসংহার – ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব

এই ছিলো আজকে ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব তা নিয়ে আমাদের বিস্তারিত আলোচনা। কোনো কিছু শেখার ক্ষেত্রে একটি ভালো প্রতিষ্ঠান থেকে আপনার শেখার আগ্রহ থাকাটা অনেক বেশি জরুরি। ডিজিটাল মার্কেটিং কিন্ত তার ব্যতিক্রম নয়। তাই, নিজের ইচ্চাশক্তিকে কাজে লাগিয়ে অনলাইন কিংবা অফলাইনে শিখে নিতে পারেন আপনার পছন্দের ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স।

উপরে ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব সম্পর্কে আলোচনা করলাম। যদি আপনার ভালো লাগে তাহলে অবশ্যই আমাদেরকে জানাবেন। আর যদি ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে শিখব সমন্ধে আরো বিস্তারিত ভাবে আমার কাছ থেকে আর্টিকেল চান তাহলে সেটাও কমেন্ট করে জানাবেন। ধন্যবাদ

Leave a Comment